শনিবার, ১০ এপ্রিল ২০২১, ০৮:১৬ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
আমার নিজস্ব কোনো থাকার জায়গা নেই, আমার কোনো বাড়ি নেই, এক কাঠা জমিও নেই: সুজন কড়া নজরদারিতে মামুনুল হক, নির্দেশনা পেলেই গ্রে’প্তার! পালাতক মামুনুল হক, মামুনুলকে কোথাও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না স্ত্রী’কে নিয়ে বেড়াতে গিয়ে আওয়ামী লীগ নেতাদের হাতে মামুনুল হক অ’বরুদ্ধ এইমাত্র পাওয়াঃ ভক্তদের কা’ন্নার সাগরে ভাসিয়ে কলকাতাকে বিশাল সমস্যায় ফেললেন সাকিব মতিঝিলে মোদিবি’রোধী বি’ক্ষো’ভ, ‘শি’শুবক্তা’ রফিকুল আ’টক অবশেষে আইপিএল বাদ দিয়ে দেশে সিরিজ খেলবেন সাকিব অবশেষে আইপিএল বাদ দিয়ে দেশে সিরিজ খেলবেন সাকিব অধিনায়কের নাম ঘোষণা করলো কলকাতা নাইট রাইডার্স তাসকিন, রুবেলকে বাদ দিয়ে যে পেসার নিয়ে ১ম ওয়ানডের জন্য শক্তিশালী দল ঘোষণা করলো ডোমিঙ্গ
ভালোবেসে পাকিস্তানি তরুণকে বিয়ে করলেন বাংলাদেশি তরুণী

ভালোবেসে পাকিস্তানি তরুণকে বিয়ে করলেন বাংলাদেশি তরুণী

ভালোবেসে পাকিস্তানি তরুণকে বিয়ে করলেন বাংলাদেশি তরুণী
ভালোবেসে পাকিস্তানি তরুণকে বিয়ে করলেন বাংলাদেশি তরুণী

করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যেই বাংলাদেশের জয়পুরহাটের মেয়ে মুরসালিন সাবরিনা ও পাকিস্তানের ছেলে মুহাম্মদ উম বিয়ে করেছেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার অনলাইনে বিয়ে সম্পন্ন হয় তাদের।এদিন বিকাল ৫টায় জয়পুরহাট পৌর শহরের কাশিয়াবাড়ি এলাকার ব্যাংক কর্মকর্তা মোজাফ্ফর হোসেনের বাড়িতে

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম অনলাইন মোবাইল ফোনে বিয়ে হয়।কনের পরিবার সূত্রে জানা যায়, মোজাফ্ফর হোসেনের মেয়ে সাবরিনা ২০১৮ সাল থেকে আমেরিকান অনলাইন ইউনিভার্সিটি অব দ্য পিপলস-এ কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে পড়াশোনা করছেন।

একই ইউনিভার্সিটিতে মুহাম্মদ উমেরও পড়াশোনা করছেন।ওই ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীদের নিজস্ব ওয়েবসাইট ‘ইয়েমার’ এর মাধ্যমে

দুজনের পরিচয় হয়। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। তারা দুজন বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নেন।২০১৯ সালে উভয়ের পরিবার কথাটি জানতে পারে। প্রথমে মুরসালিন সাবরিনার পরিবার সম্মতি দেয়নি।

পরে ছেলের পারিবারিক অবস্থা খোঁজ খবর নিয়ে মোজাফফর হোসেন মেয়েকে মুহাম্মদ উমের সঙ্গে বিয়ে দিতে রাজি হন। মুহাম্মদ উমেরের পরিবারও তাতে রাজি হয়।

গত মার্চ মাসে তাদের বিয়ের দিনক্ষণ নির্ধারণ করা হয়েছিল। উম ও তার পরিবারের কয়েক জন সদস্য বাংলাদেশে কনে বাড়িতে এসে বিয়ে পড়ানোর কথা ছিল।

কিন্তু বাধ সাধে করোনাভাইরাস।তবে করোনার এই দুর্যোগ মুহূর্তে পাকিস্তানি তরুণ ও তার পরিবারের সদস্যরা বাংলাদেশে আসতে না পারলেও শেষ পর্যন্ত বিয়ে অবশ্য আটকে থাকেনি। দুই পরিবারের সম্মতিতে অনলাইনের মাধ্যমে

এই প্রেমিকযুগল বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন।বর মোহাম্মদ উমের বাবা বিল্লাল হোসেন পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশের বাসিন্দা। তিনি সবজি ও ফলমূল ব্যবসায়ী।সাবরিনার বাবা মোজাফ্ফর হোসেন বলেন, পাকিস্তানি ছেলের সঙ্গে আমার মেয়ের বিয়ে দিয়েছি। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে জামাই এসে মেয়ে নিয়ে যাবেন।

আপনার বন্ধুদের সাথে এই পোস্ট টি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সর্বশেষ সংবাদ

সাম্প্রতিক মন্তব্য

    © All rights reserved © 2018 worldinbangladesh.com