শনিবার, ১০ এপ্রিল ২০২১, ০৮:০৯ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
আমার নিজস্ব কোনো থাকার জায়গা নেই, আমার কোনো বাড়ি নেই, এক কাঠা জমিও নেই: সুজন কড়া নজরদারিতে মামুনুল হক, নির্দেশনা পেলেই গ্রে’প্তার! পালাতক মামুনুল হক, মামুনুলকে কোথাও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না স্ত্রী’কে নিয়ে বেড়াতে গিয়ে আওয়ামী লীগ নেতাদের হাতে মামুনুল হক অ’বরুদ্ধ এইমাত্র পাওয়াঃ ভক্তদের কা’ন্নার সাগরে ভাসিয়ে কলকাতাকে বিশাল সমস্যায় ফেললেন সাকিব মতিঝিলে মোদিবি’রোধী বি’ক্ষো’ভ, ‘শি’শুবক্তা’ রফিকুল আ’টক অবশেষে আইপিএল বাদ দিয়ে দেশে সিরিজ খেলবেন সাকিব অবশেষে আইপিএল বাদ দিয়ে দেশে সিরিজ খেলবেন সাকিব অধিনায়কের নাম ঘোষণা করলো কলকাতা নাইট রাইডার্স তাসকিন, রুবেলকে বাদ দিয়ে যে পেসার নিয়ে ১ম ওয়ানডের জন্য শক্তিশালী দল ঘোষণা করলো ডোমিঙ্গ
আমার নিজস্ব কোনো থাকার জায়গা নেই, আমার কোনো বাড়ি নেই, এক কাঠা জমিও নেই: সুজন

আমার নিজস্ব কোনো থাকার জায়গা নেই, আমার কোনো বাড়ি নেই, এক কাঠা জমিও নেই: সুজন

আয়ের উৎস নিয়ে নেতিবাচক মন্তব্যকারীদের উদ্দেশে মুখ খুললেন বাংলাদেশ দলের সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাহমুদ সুজন। জানালেন ঢাকায় তার এক কাঠা জমিও নেই। ঢাকা শহরে বাড়িও নেই তার।

ক্রিকেটাঙ্গন থেকে তিনি কোটি কোটি নিচ্ছেন— এমন মন্তব্যকারীদের কড়া জবাব দিলেন বর্তমানের বোর্ড পরিচালকদের অন্যতম এ সাবেক তারকা।

বুধবার দেশের এক ক্রিকেটভিত্তিক ওয়েবসাইটকে এ বি’ষয়ে একান্ত সাক্ষাৎকার দেন খালেদ মাহমুদ সুজন।

তার আয়ের উৎস নিয়ে বিভিন্ন ত’থ্য ছড়ানোর প্রস’ঙ্গ তোলা হয়।

জবাবে ক্ষো’ভ উগড়ে দিয়ে সুজন বলেন, ‘আমি ক্রিকেট খেলে এমন কোনো টাকাপয়সা জমাইনি। বাংলাদেশে মনে হয় একমাত্র ক্রিকেটার আমি, যার একটা জায়গা নেই, বাড়ি নেই ঢাকা শহরে। সব ক্রিকেটারের পূর্বাচলে ৫-১০ কাঠা জমি আছে, আমার তো এক কাঠাও নেই। এসব অনেকে জানে না।’

ট্রলকারীদের উদ্দেশে সুজন বলেন, ‘আমাকে নিয়ে নেতিবাচক মন্তব্যকারীরা মনে করেন, আমি কোটি কোটি টাকা নিয়ে নিচ্ছি। ভাই আপনারা শুনে রাখেন, ঢাকায় আমার নিজস্ব কোনো জায়গাও নেই। আমার অনেক টাকা থাকলে পূর্বাচলে নিশ্চয় ৩টা জমি থাকত আজকে। আমার সে জন্য কোনো দুঃখ নেই। আমি আলহাম’দুলিল্লাহ ভালো আছি।’

‘আমি আসলেই রাগ থেকে কথাগুলো বলছি যে, যারা এসব বলেন, যারা আমাকে নিয়ে ট্রল করেন, তারা একদম অশিক্ষিত। তাদের ক্রিকেট জ্ঞান বলতে কিছু নেই। আমার সম্প’র্কে কথা বলার আগে জেনে বলবেন। না হলে যারা দেখতে চান, আমার থেকে শুনে যান, আমাকে দেখে যান আমি কীভাবে থাকি, কী খাই, কীভাবে চলি। ’

নিজের আয়ের উৎসের বি’ষয়টিও অকপটে জানান সুজন। বলেন, ‘আমি আসলেই অনেক কাজ করি। কিন্তু আমি কি রাজনীতি করি? আমি কি ব্যবসা করে ক্রিকেট চালাই? আমি বেক্সিমকোয় চাকরি করি। সেটার ক্রিকেট দেখি। সেখান থেকে একটা বেতন পাই। ঢাকা ডায়নামাইট আর আবাহনী দেখি।

রাজশাহীতে ক্রিকেট একাডেমি চালাই। আমি তো ফুটবল একাডেমি চালাই না। আমার তো সারাদিন ক্রিকেট। ঘুম থেকে উঠে রাতে শোয়া পর্যন্ত ক্রিকেট ছাড়া কিছু নাই আমার। আমি তো আর কিছু করি না। অনেকে বলে আমি বাংলা ট্র্যাক একাডেমি থেকে অনেক অনেক টাকা নিচ্ছি। কিন্তু ওরা আসলে কিছু জানেই না।’

‘আমি ওদের উদ্দেশে বলে দিই, আমি ওখানে ১২ দিন কাজ করি মাসে। আমি একদিন কাজ না করলেই আমার একদিনের বেতন কে’টে রাখা হয়। অবশ্যই আমার টাকার দরকার। কিন্তু আমি কোটি কোটি টাকা বেতন পাই না। সামান্য একটা বেতন পাই, যেটা আমার প্রয়োজন। এটা দিয়েই আমাকে চলতে হয়।’

এক সময়ের জাতীয় দলের অধিনায়ক খালেদ মাহমুদ সুজনকে অলরাউন্ডার ধরা হয়। টেস্ট ক্যারিয়ারে ১২ ম্যাচ খেলে তিনি রান করেছেন ২৬৬ ও উইকেট শি’কার করেছেন ১৩টি। ৭৭ ওয়ানডে খেলে তার সংগ্রহ ৯৯১ রান ও ৬৭টি উইকেট।

আপনার বন্ধুদের সাথে এই পোস্ট টি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সর্বশেষ সংবাদ

সাম্প্রতিক মন্তব্য

    © All rights reserved © 2018 worldinbangladesh.com