মঙ্গলবার, ১১ অগাস্ট ২০২০, ১২:৫৩ পূর্বাহ্ন

চীনের তৈরি ভ্যা’কসিন প্রথমেই পাবে আমাদের বন্ধু বাংলাদেশ: চীনা দূ’তাবাসের ডেপুটি চিফ

চীনের তৈরি ভ্যা’কসিন প্রথমেই পাবে আমাদের বন্ধু বাংলাদেশ: চীনা দূ’তাবাসের ডেপুটি চিফ

ক’রোনাভা’ইরাসে প্র’তিরোধের জন্য সফলভাবে কোনো ভ্যাকসিন তৈরি করতে পারলে সহযোগিতা ও সহায়তার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ অগ্রাধিকার পাবে বলে ২২ জুন জানিয়েছিলো চীন।

ঢাকার চীনা দূ’তাবাসের ডেপুটি চিফ অব মিশন হুয়ালং ইয়ান ২২ জুন বলেছিলেন, ‘বাংলাদেশ আমাদের গুরুত্বপূর্ণ বন্ধু এবং এক্ষেত্রে বাংলাদেশ অবশ্যই অগ্রাধিকার পাবে।’ তিনি বলেছিলেন, ক’রোনাভা’ইরাসে প্রাদুর্ভাব প’রিস্থিতি মো’কাবিলায়

বাংলাদেশ ও চীন নিবিড়ভাবে কাজ করছে।’ ক’রোনাভা’ইরাসেটির ভ্যাকসিন তৈরির জন্য পাঁচ’টি চীনা সংস্থা কাজ করছে বলে জানান তিনি এই ভাই’রাস মোকাবেলায় বিশ্বের শতাধিক গবে’ষণা প্রতিষ্ঠান ভ্যাকসিন তৈরির চেষ্টা করছে।

এর মধ্যে অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন এগিয়ে আছে বলে খবর প্রকাশিত হয়েছিল। কিন্তু সবাইকে ছাড়িয়ে এবার ক’রোনার ভ্যাকসিনের চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে চীন। সোমবার (২৯ জুন) এ খবর দিয়েছে ইয়াহু নিউজ।

খবরে বলা হয়েছে, দেশটির সে’নাবা’হিনীর গবে’ষণা শাখা এবং স্যানসিনো বায়োলজিকসের (৬১৮৫.এইচকে) তৈরি একটি কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন মানব শ’রীরে প্রয়োগের অনুমতি পেয়েছে।

তবে আপাতত ভ্যাকসিন শুধুমাত্র সে’নাবা’হিনীর মধ্যে ব্যবহার করা হবে। স্যানসিনো বলেছে, চীনের সেন্ট্রাল মিলিটারি কমিশন গত ২৫ জুন এডি৫-এনকোভ ভ্যাকসিনটি সৈন্যদের দে’হে এক বছরের জন্য প্রয়োগের অনুমোদন দিয়েছে।

স্যানসিনো বায়োলজিকস এবং একাডেমি অফ মিলিটারির একটি গবে’ষণা ইনস্টিটিউট যৌথভাবে ভ্যাকসিনটি তৈরি করেছে। বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, সোমবার স্যানসিনো বায়োলজিকস এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ভ্যাকসিনটি চীনের বাইরেও পরীক্ষামূ’লক প্রয়োগ হচ্ছে।

ইতিমধ্যে কাডানায় পরীক্ষামূ’লক প্রয়োগের অনুমোদনে দেয়া হয়েছে। তবে চীনের লজিস্টিক সাপোর্ট বিভাগের অনুমোদনের আগে এটি ব্যাপকভাবে সাধারণ মানুষের শ’রীরে প্রয়োগ করা হবে না।

খবরে বলা হয়েছে, বাণিজ্যিক কারণে ভ্যাকসিনটি সম্প’র্কে খুব বেশি ত’থ্য প্রকাশ করা হবে না। এমনকি সে’নাবা’হিনীর সদস্যদের এই ভ্যাকসিন নেয়া বা’ধ্যতামূ’লক কিনা তাও প্রকাশ করা হয়নি। কোম্পানির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ভ্যাকসিনটি প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপের পরীক্ষায় দারুণভাবে সফল হওয়ার পর এ সি’দ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তবে ভ্যাকসিনটি বাণিজ্যিকভাবে সফল হবে কিনা তা নিশ্চিত করে কিছু বলা হয়নি। এর আগে চাইনিজ একাডেমি অব মেডিকেল সায়েন্সেসের অধীনে ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল বায়োলজি উদ্ভাবিত কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় পর্যায়ের ‘ক্লিনিকাল ট্রায়ালে’ আছে বলে ২২ জুন এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে সাইন্স অ্যান্ড টেকনোলজি ডেইলি।

চীনের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় ইউনান প্রদেশে ভ্যাকসিনটির দ্বিতীয় ধাপের ট্রায়াল পরিচালিত হচ্ছে। এ পর্যায়ে ভ্যাকসিনটির মানুষের মধ্যে প্র’য়োগ করে এর রো’গ প্র’তিরোধ ক্ষ’মতা ও এর সুরক্ষা বি’ষয়টি আরও বিশদভাবে মূ’ল্যায়ন করা হবে। সংবাদ সংস্থা সিংহুয়া অনুসারে, সেদেশের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের ত’থ্যানুসারে বিশ্বব্যাপী ক্লিনিকাল ট্রায়ালে থাকা মোট ভ্যাকসিনের ৪০ শতাংশ চীনের। চীনে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের ক্লিনিকাল ট্রায়ালের জন্য এখন পর্যন্ত পাঁচ’টি ভ্যাকসিনকে অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

কোভিড-১৯ ম’হামা’রী মো’কাবিলায় বাংলাদেশের প’রিস্থিতি আরো ক’ঠিন হতে থাকায় চীনের প্রে’সিডেন্ট শি জিনপিং ২০মে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে টেলিফোনে কথা বলেছেন।

দুই বন্ধুত্বপূর্ণ দেশের শীর্ষ নেতাদের আলোচনায়, চীনের প্রে’সিডেন্ট কোভিড-১৯ পরিস্থিতি মো’কাবিলায় সত্যিকারের বন্ধু হিসাবে সর্বাত্মক সহযোগিতা দিয়ে বাংলাদেশের পাশে থাকবেন বলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আশ্বাস দিয়েছিলেন। সূত্র : ইউএনবি

আপনার বন্ধুদের সাথে এই পোস্ট টি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সাম্প্রতিক মন্তব্য

    © All rights reserved © 2018 worldinbangladesh.com